ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ?

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ? বাংলা আর্টিকেল লিখে ব্লগিং করে কত টাকা ইনকাম করতে পারব? ইত্যাদি প্রশ্ন সবার মনে থাকে। যারা নতুন ব্লগিং শুরু করতে চান তারা সবাই এই প্রশ্নগুলোর উত্তর জানতে চান।

কারণ এই প্রশ্নগুলো উত্তর জেনে আপনি সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন, আপনি কোন বিষয়ের উপর ব্লগিং শুরু করবেন? আপনার ব্লগ সাইট বাংলা বা ইংরেজী হবে কিনা! এবং আপনি শেষে ব্লগিং করে কত টাকা ইনকাম করতে পারবেন ইত্যাদি।

আজকে আমি আপনাদের ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়? ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। তো চলুন কথা না বলে আমার বাস্তব অভিজ্ঞতা  আলোকে আলোচনা করা যাক।

ব্লগিং করে টাকা আয় 

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ? এই প্রশ্নটার সঠিক উত্তর জানতে হলে আপনাকে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়তে হবে। কারণ ব্লগিং করে আপনি বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। ব্লগিং করে বেশি টাকা ইনকাম করতে হলে আপনাকে কিছু হিডেন টিপস ফলো করতে হবে। এবং এই আর্টিকেলে আমি এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

এবং এর জন্য সর্বপ্রথম আপনাকে জানতে হবে

ব্লগিং কি ?

ব্লগ হল এক ধরনের অনলাইন ব্যক্তিগত পত্রিকা। ব্লগ শব্দটি ওয়েবব্লগের সংক্ষিপ্ত রূপ। যিনি ব্লগে পোস্ট করেন তাকে ব্লগার বলা হয়। ব্লগাররা প্রতিনিয়ত তাদের ওয়েবসাইটে আর্টিকেল যুক্ত করেন এবং ব্যবহারকারীরা ব্লগে তাদের মন্তব্য করতে পারেন।  অর্থাৎ সাইটে পোস্ট প্রকাশ করা হল ব্লগিং

ব্লগ থেকে কিভাবে আয় হয় ?

ব্লগ হল একটি ওয়েবসাইট, যে ওয়েবসাইডে বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে আর্টিকেল লিখতে থাকবেন। এরপর আপনি বিভিন্ন ads নেটওয়ার্কে আপনার ব্লগটি মনিটাইজেশন করতে পারবেন। আপনার ব্লক মনিটাইজেশন হওয়ার পর ads নেটওয়ার্ক আপনার ওয়েবসাইট ads দেখাবে এবং এর বিনিময়ে আপনি টাকা পাবেন। 

ব্লগারদের জন্য বর্তমান সবথেকে জনপ্রিয় ads নেটওয়ার্ক হল গুগল এডসেন্স। আপনার ব্লগ গুগোল অ্যাডসেন্সে মনিটাইজেশন অন করে গুগল এডসেন্স থেকে আপনি প্রচুর পরিমাণে ইনকাম করতে পারবেন

ব্লগিং করে কতভাবে আয় করা যায় ?

ব্লগ থেকে বিভিন্ন ভাবে আয় করা যায়। আমি অলরেডি ইতিমধ্যে গুগল এডসেন্স এর কথা উল্লেখ করছি।  গুগল এডসেন্স ছাড়াও এফিলিয়েট, প্রোডাক্ট বিক্রি, স্পনসর, বিভিন্ন সাইট প্রমোশন এর মাধ্যমে ইনকাম করা যায়। 

এছাড়া আরো অন্যান্য ads নেটওয়ার্ক যেমন ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল ইত্যাদি থেকে প্রচুর টাকা ইনকাম করা যায়। ব্লগিং থেকে ইনকাম করার প্রধান শর্ত হল আপনার সাইটে ভিজিটর  থাকতে হবে। 

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ?

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ? এর সঠিক উত্তর হচ্ছে ব্লগিং থেকে ইনকাম নির্ভর করে ট্রাফিকের ওপর। আপনার ওয়েবসাইটে যত বেশি ট্রাফিক অর্থাৎ ভিজিটর হবে আপনি তত বেশি ইনকাম করতে পারবেন। অর্থাৎ ব্লগিং করে আপনি অনেক বেশি টাকা ইনকাম করতে চাইলে আপনার ওয়েবসাইটে অনেক বেশি ভিজিটর আনতে হবে। 

এছাড়াও ব্লগিং ইনকাম নির্ভর করে আপনার ওয়েবসাইটের ল্যাঙ্গুয়েজ কি ? অর্থাৎ আপনি যদি বাংলা ল্যাঙ্গুয়েজ এর ওয়েবসাইট বানান, তাহলে একটু কম ইনকাম করতে পারবেন। আর যদি আপনি ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ এর ওয়েবসাইট বানান তাহলে বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

ল্যাঙ্গুয়েজ ছাড়াও আপনার ইনকাম নির্ভর করে আপনার ব্লগে কোন দেশের ট্রাফিক ভিজিট করে।  আপনার যদি উন্নত কান্ট্রির ভিজিটর ভিজিট করে তাহলে আপনি অল্প ভিজিটর অনেক বেশি ইনকাম করতে পারবেন।  নিচে ল্যাঙ্গুয়েজে এবং ভিজিটর উপর ভিত্তি করে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো:

বাংলা সাইট থেকে আয়:

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ! আনুমানিক একটা বাংলা ওয়েবসাইট থেকে প্রথম ইনকাম 300 থেকে 400 ডলার এবং দ্বিতীয় বছরে ইনকাম প্রতিমাসে 500 থেকে 600 ডলার এবং তৃতীয় বছরে ইনকাম 1000 থেকে 1200 ডলার। 

অর্থাৎ আপনার ব্লগ যত পুরাতন হবে আপনার ইনকাম তত বেশী বাড়তে থাকবে কারণ আপনি অনেক বেশি ভিজিটর পেতে থাকবেন। ধরেন আপনার ব্লগিং সাইডে প্রতিদিন 1000 ভিজিটর ভিজিট করে,  তাহলে আপনি মাস শেষে অনায়াসে 400 ডলার ইনকাম করতে পারবেন।

যেহেতু আপনার সাইটটি বাংলা এবং আপনার ভিজিটর বাংলাদেশি সুতরাং এর জন্য আপনি 300 ডলার ইনকাম করতে পারবেন। যদি আপনার সাইটটি ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজে হতো, তাহলে আপনি আরো বেশি ইনকাম করতে পারতেন।

বিশেষ দ্রষ্টব্য:  আমি একটি আনুমানিক আইডিয়া দেওয়ার চেষ্টা করেছি এর থেকেও বেশি ইনকাম হয়

ইংরেজি সাইট থেকে আয় : 

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ! একটি ইংরেজী সাইট থেকে প্রতি বছর প্রচুর টাকা ইনকাম করা যায়।  আনুমানিক  প্রথম বছর একটি সাইট থেকে দুই থেকে তিন হাজার ডলার এবং দ্বিতীয় বছর 10 থেকে 20 হাজার ডলার এবং তৃতীয় বছর 50 থেকে 60 হাজার ডলার পর্যন্ত ইনকাম করা যায়।

আপনার যদি একটি ইংরেজী সাইট থাকে এবং এটা যদি ইউরোপ-আমেরিকার থেকে প্রতিদিন 1000 ভিজিটর ভিজিট করে। তাহলে আপনি ওই ওয়েবসাইট থেকে প্রতিমাসে 800 থেকে 1000 ডলার ইনকাম করতে পারবেন। সুতরাং বুঝতেই পারছেন ব্লগিং করে কি রকম ইনকাম করা সম্ভব

অর্থাৎ ব্লগিং করে একটি বাংলা ওয়েবসাইট থেকে আনুমানিক 600 থেকে 1200 ডলার ইনকাম করা যায়।  অর্থাৎ আপনি প্রতিমাসে ব্লগিং করে 60 হাজার থেকে এক লাখ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। যদি আপনার ওয়েবসাইটে প্রতিদিন 1 হাজার ভিজিটর থাকে।

মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করে ইনকাম

মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করা সম্ভব। অনেকেই আছে মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করে অনেক বেশি টাকা ইনকাম করে থাকে। আপনার হয়তো বিশ্বাস হচ্ছেনা মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করা সম্ভব কিনা ? চিন্তা করবেন না আমি প্রমান সহকারে মোবাইল দিয়ে ব্লগের সম্ভব তা দেখিয়ে দিব।

মোবাইল দিয়ে ব্লগিং সম্পর্কে আমি অলরেডি অনেক আর্টিকেল লিখেছি। আপনার যদি কম্পিউটার না থাকে এবং আপনার যদি স্মার্টফোন থাকে। তাহলে আপনি এই মোবাইল দিয়ে ব্লগিং সম্ভব কি-না এ আর্টিকেলগুলো সম্পূর্ণ পড়ে, মোবাইলে ব্লগিং শুরু করতে পারেন। মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ? ইত্যাদি সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে

ব্লগিং ইনকাম কিভাবে নির্ধারণ করা হয় ? 

ব্লগিং ইনকাম নির্ধারণ করে সিপিসি এর ওপর অর্থাৎ  প্রতি click  এর ওপর খরচ।  ধরেন আপনার বাংলা ওয়েবসাইটে প্রতিদিন 100টি করে ক্লিক করে। তাহলে বাংলা ওয়েবসাইটে সর্বনিম্ন সিপিসি যদি $0.2  ধরা হয়, তাহলে প্রতিদিন আপনি 20 ডলার ইনকাম করতে পারবেন। তারমানে আপনার ওয়েবসাইট থেকে মাস শেষে 600 ডলার ইনকাম করতে পারবেন।

 অর্থাৎ এই 600  ডলার আনুমানিক, আপনি এর বেশিও ইনকাম করতে পারবেন।  সুতরাং আপনি বুঝতে পারছেন আপনি কি পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন প্রতিমাসে। 

আর আপনার ওয়েবসাইট যদি ইংরেজি হয়ে থাকে,  এবং আপনার ট্রাফিক যদি ইউরোপ-আমেরিকার হয়ে থাকে। তাহলে আপনি প্রতি ক্লিকে অপ সর্বনিম্ন সিপিসি পাবেন $0.5. অর্থাৎ 100 ক্লিকে আপনি 50 ডলার পাবেন। 

ব্লগিং থেকে আয় করতে কত টাকা ইনভেস্ট করতে হয়?

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ? এবং ব্লগিং করে ইনকাম করতে গেলে কত টাকা ইনভেস্ট করতে হয়? আপনার মনে এরকম প্রশ্ন থাকতে পারে। ব্লগিং থেকে ইনকাম করতে হলে আপনাকে অনেক বেশি টাকা ইনভেস্ট করতে হবে না। ইউটিউব দেখে আপনাকে একটি ওয়েবসাইট বানাতে হবে। 

আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট বানাতে চান, তাহলে আপনাকে হোস্টিং কিনতে হবে। আর যদি আপনি blogger.com দিয়ে সাইট বানান, তাহলে আপনাকে হোস্টিং কিনতে হবে না। 

 একটি ডটকম ডোমেইন কিনতে আনুমানিক খরচ 800  টাকা

 এবং একটি হোস্টিং কিনতে আনুমানিক খরচ 2,000 টাকা

তারমানে আপনি তিন হাজার টাকা খরচ করে একটি সুন্দর ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন। এবং এটি হচ্ছে আপনার ব্লগের এক বছরের খরচ।  আর আপনি যদি ব্লগারদের ওয়েবসাইট বানান, তাহলে আপনি মাত্র 800 টাকা দিয়ে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন।

বিশেষ দ্রষ্টব্য:  ব্লগার দিয়ে ওয়েবসাইট বানাতে কোন টাকা পয়সা লাগে না। যেহেতু আপনি প্রফেশনালি কাজ করতে চান, তাহলে আমি আপনাকে পরামর্শ দেবে একটি ডোমেইন কিনতে।  আর আপনি যদি ডোমেইন কিনতে না চান তাহলে আপনি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন।

ব্লগিং থেকে আয় শুরু করতে কত সময় লাগে ?

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ! আমি আগেই বলে দিয়েছি ব্লগিং থেকে ইনকাম এর  প্রধান উপায় গুগল এডসেন্স। এবং গুগোল অ্যাডসেন্সে এপ্রুভ পেতে হলে আপনাকে 25 থেকে 30 টি আর্টিকেল এবং ওয়েবসাইট তৈরি করতে হয়। সম্পন্ন রেডি হওয়ার পরে এপ্লাই করুন আশা করি গুগল এডসেন্স পেয়ে যাবেন

সাইটটি গুগোল অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভ হওয়ার পর আপনার প্রধান লক্ষ্য থাকবে আপনার ওয়েবসাইটের আর্টিকেলগুলো গুগোল  ফাস্ট পেজ র্যাঙ্কিংয়ে আনা। আপনার ব্লগে যদি 100 টি আর্টিকেল থাকে, এবং এর মধ্যে থেকে যদি 30 আর্টিকেল গুগোল রেংকিং এর ফাস্ট পেজে থাকে।  প্রত্যেকটি আর্টিকেল থেকে 30 জন ভিজিটর যদি আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিট করে। তারমানে আপনার ব্লগে প্রতিদিন 1000 জন ভিজিটর ভিজিট করবে। অর্থাৎ আপনি মাস শেষে প্রায় 600 ডলার ইনকাম করতে পারবেন।

আপনি যদি প্রতিদিন একটি করে আর্টিকেল প্রকাশ করেন, তার মানে 100 টি আর্টিকেল প্রকাশ করতে আপনার 100 দিন লাগবে।  ধরেন আপনি দুই দিনে একটি আর্টিকেল প্রকাশ করলেন।  অর্থাৎ 200 দিনে আপনার 100 টি আর্টিকেল পূর্ণ হল।

তার মানে আপনার এই প্রতিষ্ঠানে আসতে প্রায় ছয় মাস সময় লাগবে।  তাহলে আর দেরি কেন? এখনই প্রতিদিন একটি করে আর্টিকেল প্রকাশ করে দিন এবং ছয় মাস পরে আপনি রেজাল্ট দেখুন। আপনি অবাক হয়ে যাবেন। আশা করি বুঝতে পেরেছেন ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়

উপসংহার:

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ?  এই প্রশ্নের সঠিক উত্তর আমি অলরেডি দিয়ে দিয়েছি। ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়  এর আগে কয়েকটি পদক্ষেপ উল্লেখ করে দিয়েছি। আশা করি আপনি আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ মনোযোগ সহকারে পড়েছেন এবং সম্পূর্ন বুঝতে পেরেছেন।

এই ওয়েবসাইটে অনলাইনে ইনকাম ফ্রিল্যান্সিং ইত্যাদি রিলেটেড প্রতিনিয়ত আর্টিকেল প্রকাশ করা হয়। ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় এই প্রশ্নটির উত্তর আশা করি পেয়ে গেছেন। অনলাইন ইনকাম শিখতে চাইলে আমাদের সাথেই থাকুন সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ

Leave a Comment

Your email address will not be published.